ফিরে দেখা রাঙামাটি পৌর নির্বাচন ’১১

397

Rangamati_b

মো: হান্নান- ২৬ ডিসেম্বর ২০১৫, দৈনিক রাঙামাটি : নির্বাচন এলে পথে-ঘাটে-ঘরে-বাজারে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ অকপটে তাদের মতামত ও বিশে¬ষণ ব্যক্ত করতে থাকেন। বিজ্ঞের মত উপস্থান করা এসব বিশে¬ষণে যেমন অনেকের কপাল পোড়ে, তেমনি আবার অনেকের জন্য শাপে বর হয়ে উঠে। সেখানে থাকে সত্য মিথ্যা মিশ্রিত নানান তথ্য। এই সব জান্তদের সুবিধার জন্যই আমাদের এই উপস্থাপন ‘ফিরে দেখা পৌর নির্বাচন ২০১১’। ২০১১ সালে নির্দলীয়ভাবে অনুষ্ঠিত হওয়া রাঙামাটি পৌরসভা নির্বাচনে তিন হেভিওয়েট প্রার্থীকে পিছনে ফেলে ¯্রােতের বিপরীতে থাকা বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী সাইফুল ইসলাম চৌধুরী মেয়র পদে নির্বাচিত হন। এ নির্বাচনে রাঙামাটি পৌরসভার ২৭টি ভোট কেন্দ্রে ভোটার ছিল মোট ৫৩,২৫৭জন। ব্যালটের মাধ্যমে ভোটাররা একজন মেয়র, তিনজন সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর এবং নয়জন সাধারণ কাউন্সিলর নির্বাচিত করে। ২০১১ সালে অনুষ্ঠিত রাঙামাটি পৌরসভা নির্বাচনের ফলাফল চিত্রে ধারাবাহিক প্রতিবেদনের প্রথম পর্বে থাকছে মেয়র প্রার্থীদের পরিসংখ্যান ও ফলাফল বিশে¬ষণ।

২০১১ সালে পৌর নির্বাচনে রাঙামাটি পৌরসভার মেয়র পদে নির্বাচন করে মোট ০৪ জন। নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনায় নানামূখি হিসাব-নিকাশে চার হেভিওয়েট প্রার্থীর মধ্যে এগিয়ে ছিল আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী মোঃ আব্দুল মতিন, জেলা পরিষদের প্রাক্তন সদস্য মনিরুজ্জামান মহসিন রানা। এরপরের অবস্থানে যথাক্রমে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মোঃ সাইফুল ইসলাম চৌধুরী ভুট্টো ও প্রতীম রায় পাম্পু। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিয়ে তাদের মধ্যে ১০,৮৮৩ ভোট পেয়ে সাইফুল ইসলাম চৌধুরী ভুট্টো আনারস প্রতীকে নির্বাচিত হন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন, ৮,৯১৫ভোট পেয়ে টেলিভিশন প্রতীকের প্রতীম রায়। এছাড়া নির্বাচন পূর্ববর্তী জরিপে এগিয়ে থাকা আব্দুল মতিন দেওয়াল ঘড়ি প্রতীকে ৮, ১৬৩ ভোট এবং মনিরুজ্জামান মহসিন রানা জাহাজ প্রতীকে পান ৬০৬৩ ভোট।

এ নির্বাচনে মোট ২৭টি ভোট কেন্দ্রের ফলাফলে দেখা যায় স্ব-স্ব প্রার্থীরা নিজ কেন্দ্রে শতভাগ আধিপত্য ধরে রাখতে পারেননি। তবে অনেকটা অন্য কেন্দ্রগুলোতে অভাবনীয় সাফল্য লক্ষ্য করা গেছে প্রার্থীদের ক্ষেত্রে। ৫৩,২৫৭ ভোটের বিপরীতে ভোট প্রয়োগ হয় ৩৫,০০৪টি। এর মধ্যে বৈধ ভোট ৩৪,০২৪টি, বাতিল হয় ৯৮০টি ভোট। কাস্টিং ভোটের শতকরা হার ছিল ৬৫.৭৩%।

রিজার্ভ বাজার এলাকার ৬টি ভোটকেন্দ্রে ৪টিতেই জয়ী হন সাইফুল ইসলাম চৌধুরী। বাকী দুটি কেন্দ্রে জয় ছিনিয়ে নেয় মোঃ মনিরুজ্জামান মহসিন। কোনো কেন্দ্রে জিততে না পারা এর পরের অবস্থান গুলোতে ছিলেন আব্দুল মতিন ও প্রতিম রায়। তবে প্রতিম রায় পাম্পুর ভোট সংখ্যা এ কেন্দ্রেগুলোতে আশানুরুপ ছিল না। হিসাবে দেখা যায় ৬টি কেন্দ্রে মোট ভোটার ছিল ১০,৯৪১টি। ভোট প্রয়োগ হয় ৭৭৯২টি। এরমধ্যে বৈধ ভোট ৭৬১১টি, বাতিল ভোট ১৮১টি। এ ৬টি কেন্দ্রে সাইফুল ইসলাম চৌধুরী পান ২৯৭৩ ভোট, মনিরুজ্জামান মহসিন রানা পান ২৭৯১ ভোট, আবদুল মতিন পান ১৩৭৩ ভোট ও প্রতীম রায় পান ৪৭৪ ভোট। এই ৬টি কেন্দ্রে সাইফুল ইসলাম চৌধুরী সবচেয়ে বেশি ভোট পান রাঙ্গামাটি সিনিয়র মাদ্রাসা কেন্দ্রে ৬২৫। মনিরুজ্জামান মহসিন নিউ রাঙ্গামাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সবচেয়ে বেশি ৭১৩ ভোট পান। তাছাড়া বাকী দুই প্রার্থী নিজেদের সর্বোচ্চ ভোট পান নিউ রাঙ্গামাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। এই কেন্দ্রে আব্দুল মতিন ২৯৭ ভোট এবং প্রতিম রায় সর্বোচ্চ ১৪৫ ভোট পান।

রিজার্ভমুখ থেকে আসামবস্তি পর্যন্ত মোট ৮টি কেন্দ্রের মধ্যে সাইফুল ইসলাম ভুট্টো ৬টি, আব্দুল মতিন ১টি ও প্রতিম রায় ১টিতে জয়ী হয়। অপর প্রার্থী মনিরুজ্জামান মহসিন কেন্দ্র জয়ে ব্যর্থ হয়। এ ৮টি কেন্দ্রের মোট ভোটার ছিল ১৪৪১৫টি। ভোট প্রয়োগ হয় ৯২৭৫টি। এরমধ্যে বৈধ ভোট ৯০৪৮টি, বাতিল ভোট ২২৭টি। এ ৮টি কেন্দ্রে সাইফুল ইসলাম চৌধুরী পান ৩২৯২ ভোট, আবদুল মতিন পান ৩২৮৫ ভোট, প্রতীম রায় পান ১৫৪৮ ভোট  ও মনিরুজ্জামান মহসিন রানা পান ১১৫০ ভোট। এখানে ৮টি কেন্দ্রে সাইফুল ইসলাম চৌধুরী সবচেয়ে বেশি ৯৫৬ ভোট পান দক্ষিন বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে। আবদুল মতিন আসামবস্তি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সবচেয়ে বেশি ৭৬১ ভোট পান। অপর দুই প্রার্থীর মধ্যে মনিরুজ্জামান মহসিন রানা নিজের সর্বোচ্চ ভোট পান শাহ বহুমূখি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে। এই কেন্দ্রে তিনি ৩৫৫ ভোট পান। প্রতিম রায় ঝগড়াবিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সর্বোচ্চ ৫৪১ ভোট পান।

ভেদভেদী হতে কাঠালতলী পর্যন্ত মোট ১৩টি কেন্দ্রের মধ্যে আগের কেন্দ্রগুলোর ক্ষতি পুষিয়ে প্রতিম রায়  জিতে নেন ৯টি কেন্দ্র। বাকী কেন্দ্রগুলোর মধ্যে সাইফুল ইসলাম চৌধুরী ৪টি। এখানে কোন কেন্দ্র জিততে পারেনি অপর দুই প্রার্থী আব্দুল মতিন ও মনিরুজ্জামান মহসিন রানা। এই ১৩টি কেন্দ্রের মোট ভোটার ছিল ২৭,৯০১টি। ভোট প্রয়োগ হয় ১৭,৭১০টি। এরমধ্যে বৈধ ভোট ১৭,১২০টি, বাতিল ভোট ৫৯০টি। এ ১২টি কেন্দ্রে প্রতীম রায় পান ৬,৮৯৩ ভোট, সাইফুল ইসলাম চৌধুরী পান ৪,৬১৮ ভোট, আবদুল মতিন পান ৩৫০৫ ভোট, মনিরুজ্জামান মহসিন রানা পান ২১১৬ ভোট। এখানে ১৩টি কেন্দ্রের মধ্যে ব্যক্তিগতভাবে প্রতিম রায় যোগেন্দ্র দেওয়ানপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সর্বোচ্চ ৯৭৩ ভোট পান। সাইফুল ইসলাম চৌধুরী নিজের সবোর্চ্চ ৭৩১ ভোট পান গোধুলী আমানতবাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। অপর দুই প্রার্থী মনিরুজ্জামান মহসিন রানা সর্বোচ্চ ৪৪২ ভোট পান রানী দয়াময়ী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এবং আবদুল মতিন ভেদভেদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে সর্বোচ্চ ৫৬০ ভোট পান।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান