বাঘাইছড়িতে বিরচিত সংবর্ধনায় ভূষিত চারণ সাংবাদিক একেএম মকছুদ আহমেদ

307

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥
পাহাড়ের সংবাদপত্র জগতের পথিকৃত, প্রবীণ সাংবাদিক ও দৈনিক গিরিদর্পণ সম্পাদক এ,কে,এম মকছুদ আহমেদকে বিরোচিত সংবর্ধনা প্রদান করেছে বাঘাইছড়িবাসী। সোমবার (১২ অক্টোবর) বাঘাইছড়ি প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে একেএম মকছুদ আহমেদ এর সাংবাদিকতায় ৫০ বছর পূর্তি ঘিরে এই সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। এ সময় বক্তরা বলেন, এই বর্ষিয়াণ ব্যক্তিত্বকে সংবর্ধিত করতে পেরে বাঘাইছড়ি বাসী ধন্য হয়েছে।

বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ সংবর্ধণা অনষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাঘাইছড়ি প্রেস ক্লাবের সভাপতি দীলিপ কুমার দাশ। এতে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শরিফুল ইসলাম প্রধান অতিথি এবং সংবর্ধিত অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক গিরিদর্পণ সম্পাদক পার্বত্য অঞ্চলের সংবাদপত্রের পথিকৃৎ, চারণ সাংবাদিক এ,কে,এম মকছুদ আহমেদ।

এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন বাঘাইছড়ি পৌর সভার মেয়র জাফর আলী খান, বাঘাইছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আশরাফ, বাঘাইছড়ি সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো কাইয়ুম, সাবেক সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আজিজুর রহমান আজিজ, বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলী হোসেন, কাচালং কলেজের অধ্যক্ষ দেব প্রসাদ দেওয়ান, দৈনিক গিরিদর্পণ বার্তা সম্পাদক নন্দন দেবনাথ, সাজেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নেলসন চাকমা, কাচালং ডিগ্রী কলেজের প্রফেসর মোঃ কামাল হোসেন বক্তব্য রাখেন।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন, বাঘাইছড়ি প্রেসক্লাব সভাপতি ও বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ গিয়াস উদ্দিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন উপ-সহকারী উদ্ভিত সংরক্ষক তোফায়েল আহম্মেদ।

বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে কাজ করার নতুন অভিজ্ঞতা আমার জন্ম হয়েছে। এই অঞ্চলের এমন একজন গুনী ব্যক্তি পাহাড়ের চোখ এ,কে,এম মকছুদ আহমেদকে যে সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে তা যথার্থই হয়েছে। তিনি যে পরিমানে পাহাড়ের মানুষের কল্যাণে কাজ করেছে তাকে এই সামন্য সম্মানা দিয়ে কিছুই হবে না। তাকে আরো বড়ো মাপে রাষ্ট্রীয় সম্মাননায় ভূষিত করা হলে হয়তো তা পুরণ হওয়া সম্ভব। তিনি এ,কে,এম মকছুদ আহমেদের দীর্ঘ সুস্থ জীবন কামনা করেন।

সংবর্ধনার জবাবে দৈনিক গিরিদর্পণ সম্পাদক সাংবাদিকতার পথিকৃৎ এ,কে,এম মকছুদ আহমেদ বলেন, আমার সাংবাদিকতা জীবনের শুরু হচ্ছে বাঘাইছড়ির লালু কালুর দাশপ্রথা দিয়ে। এই বর্ণাঢ্য জীবনের শুরুর কথা গুলো আমি কখনোই ভুলতে পারবো।

তিনি বলেন, পাহাড়ের সাংবাদিকা বর্তমানে অনেক সহজ হয়ে গেছে। আমরা যখন সাংবাদিকতা করেছি তখন পায়ে হেঁটে হেঁটে করতে হয়েছে। পার্বত্য অঞ্চলের প্রতিটি ইউনিয়নে প্রতিটি গ্রামে আমার যাওয়া হয়েছে। প্রতিটি গ্রামের মানুষের কথা তুলে ধরতে পেরেছি বলেই পাহাড়ের মানুষ আমাকে এখনো ভালোবাসে। মানুষের ভালোবাসা পেয়েই আমি বেঁচে আছি। অনেক অসুস্থ হয়েও মানুষের কল্যাণে কাজ করে যেতে চাই। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শান্তিতে ইউনেস্কো পুরস্কার পেয়েছে। পাহাড়ের শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য শান্তি চুক্তি করে। এই চুক্তিতে বাস্তবায়নের জন্য আমার অবদান কম নয়। পাহাড়ের শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য দৈনিক গিরিদর্পনের মাধ্যমে যে লেখনী আমরা লিখেছি তারই আলোকে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন আরো সহজ হয়েছে।

বাঘাইছড়ি পৌর সভার মেয়র জাফর আলী খান বলেন, বাঘাইছড়ি পৌরসভার উন্নয়নে দৈনিক গিরিদর্পণ সম্পাদকের অবদান কম নয়। বাঘাইছড়ি পৌরসভার বিভিন্ন অভাব অভিযোগ পত্রিকার মাধ্যমে তুলে ধরে তিনি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি বলেন, পাহাড়ের এই চোখকে সংবর্ধনা জানাতে পেরে আজ নিজেদের গর্বিত মনে হচ্ছে।

বাঘাইছড়ি থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আশরাফ বলেন, সাংবাদিকতা এমন একটি পেশা যেটার মাধ্যমে সকলের উপকার করা যায়। তিনি বলেন, পুলিশ ও সাংবাদিক কেউ কারো চেয়ে কম নয়। সকলেই একে অন্যের পরিপুরক। সাংবাদিক এ,কে,এম মকছুদ আহমেদের দীর্ঘ ৫০ বছরের সাংবাদিকতা জীবনে পাহাড়ের অনেক মানুষের কল্যাণে কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন তিনি।
বাঘাইছড়ি সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো কাইয়ুম বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের অসাম্প্রদায়িক চেতনার ধারক চারণ সাংবাদিকদের ৫০ বছরের কর্মময় সাংবাদিকতা জীবনে মানুষের উপকারে অনেক কাজ করেছে। তিনি তার লেখানীর মাধ্যমে পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের দুঃখ দুরদাশা গুলো তুলে ধরে তাদের কল্যাণে কাজ করেছে।

সাবেক বাঘাইছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আজিজুর রহমান আজিজ বলেন, এ,কে,এম মকছুদ আহমেদের বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনে পাহাড়ের প্রতিটি মানুষ উপকৃত হয়েছে। পার্বত্য অঞ্চল এমন কোন সাংবদিক নেই এ,কে,এম মকছুদ আহমেদের হাতে ছোঁয়া পায়নি। অনেকেই আজ বড়ো বড়ো সাংবাদিক। তার পত্রিকা বনভ’মি ও গিরিদর্পণ পত্রিকায় লেখা লেখি করে আজ তারা নামীদামী সাংবাদিক। তিনি পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের কল্যাণে কাজ করে গেছেন বলেই পাহাড়ের প্রতিটি মানুষ আজ তাকে ভালোবাসে।

বাঘাইছড়ি উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলী হোসেন বলেন, ছাত্র জীবনে লেখাপড়া করেছি রাঙ্গামাটি সরকারী কলেজে। এই কলেজে লেখাপড়ার করার সময় এ,কে,এম মকছুদ আহমেদের পত্রিকা অফিস রাঙ্গামাটি প্রকাশনী থেকে বই সংগ্রহ করে লেখাপড়া করার সুযোগ হয়েছে। তিনি বলেন, অসংখ্য গরীব ও মেধাবী ছাত্র ছাত্রী এ,কে,এম মকছুদ আহমেদের সহযোগিতায় আজ শিক্ষিত হয়েছে। এমন গুনী মানুষের সাংবাদিকতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে সম্মাননা জানাতে পেরে নিজেরাই আজ গর্বিত।

কাচালং কলেজের অধ্যক্ষ দেব প্রসাদ দেওয়ান বলেন, এ,কে,এম মকছুদ আহমেদেও ৫০ বছরের বর্ণাঢ্য সাংবাদিকতা জীবনের পাশাপাশি তার রাঙ্গামাটি প্রকাশনী ছিল ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষা গ্রহণের আরেকটি স্কুল। এই প্রকাশনীতে ছাত্র ছাত্রীরা তাদের বিভিন্ন শিক্ষা মুলক বই সহ বিভিন্ন সামায়িকী নিয়ে লেখাপড়ার সুযোগ পেয়েছিলো। এমন মানুষের ৫০ বছরের সাংবাদিকতা জীবনের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে থাকতে পেরে নিজেকে গর্বিত মনে করছি।

পরে বাঘাইছড়ি পৌরসভার পক্ষ থেকে মেয়র মোঃ জাফর আলী খান ও বাঘাইছড়ি প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে সভাপতি দীলিপ কুমার দাশ এবং সাধারণ সম্পাদক মোঃ গিয়াস উদ্দিন ক্রেষ্ট তুলে দেন।