রাঙামাটিতে ভিটামিন ‘এ’ অভিযানে ৮১ হাজার শিশুর লক্ষ্যমাত্রা 

320

॥ আলমগীর মানিক ॥
করোনাময় পরিস্থিতির আলোকে এবার রাঙামাটিতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে ২ সপ্তাহব্যাপী ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন কর্মসূচী পালন করবে রাঙামাটির স্বাস্থ্য বিভাগ। জেলার ৬ মাস থেকে সর্বোচ্চ ৫৯ মাস বয়সী ৮০ হাজার ৯৮১ জন শিশুকে এবার ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনের আওতায় আনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিভিল সার্জন ডাঃ বিপাশ খীসা।

রোববার নিজ কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে রাঙামাটিতে কর্মরত সাংবাদিকদের নিয়ে আয়োজিত অবহিতকরণ সভায় এই তথ্য জানিয়েছেন তিনি। এসময় সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোস্তফা কামাল, সিনিয়র সাংবাদিক সৈয়দ মাহাবুব আহামেদসহ গণমাধ্যমকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় জানানো হয়, আগামী ২৬শে সেপ্টেম্বর থেকে পরবর্তী দুই সপ্তাহব্যাপী সরকারি কর্মদিবসগুলোতে নিয়মিতই ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন কর্মসূচীর মাধ্যমে ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী ৮৯১৮জন এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী ৭২০৬৩জন শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর পাশাপাশি তাদের অভিভাবকদের মাঝে পুষ্টিবার্তা পৌছে দিবে স্বাস্থকর্মী ও স্বেচ্ছাসেবীগণ। রাঙামাটির ১০ উপজেলা ও পৌরসভাসহ ৫০টি ইউনিয়নের ১৫৯ ওয়ার্ডে একযোগে এই ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন কর্মসূচীতে ২২০১ স্বেচ্ছাসেবী ও ৪২৯ জন মাঠকর্মীসহ প্রথমসারির ২৪১জন তদারককারী দায়িত্ব পালন করবে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এবার করোনা পরিস্থিতির আলোকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এপ্লাস ক্যাম্পেইন কর্মসূচী পালন করা হবে। এই লক্ষ্যে প্রতিটি ওয়ার্ডে ৮ জন করে স্বেচ্ছাসেবী নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে। সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে সিভিল সার্জন জানান, দূর্গম এলাকাগুলোতে এই কর্মসূচী সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে সেখানকার পাড়াকর্মীদের সহায়তা নেবে স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃপক্ষ। ইতিমধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সংশ্লিষ্ট্যদের সাথে যোগাযোগও করা হয়েছে। এছাড়াও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে রাঙামাটির সকল ধর্মীয় উপাসনালয়গুলোতেও মাইকিংসহ ধর্মীয় গুরুদের মাধ্যমে এই ক্যাম্পেইনের বিষয়টি প্রচার করার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

রাঙামাটিতে কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীদের নিয়ে জেলার স্বাস্থ্য বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত এই অবহিতকরণ সভায় সঞ্চালকের ভূমিকায় থাকা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোস্তফা কামাল জানিয়েছেন, ৬ থেকে ১১ মাস বয়সী প্রতিটি শিশুকে সংশ্লিষ্ট্য কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা স্বেচ্ছসেবী একটি নীল রঙের এবং ১২ থেকে ৫৯ মাস বয়সী শিশুকে একটি করে লাল রংয়ের ভিটামিন এ ক্যাপসুল কেটে খাওয়াবেন।

সিভিল সার্জন উক্ত ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইন কর্মসূচী সম্পকে গণমাধ্যমকর্মীদের সজাগ দৃষ্টি রাখার অনুরোধ জানিয়ে বলেন, এই ধরনের ক্যাম্পেইন চলাকালীন সময়ে অনেকেই নানা রকম গুজব ছড়ানোর চেষ্ঠা করে থাকে। প্রকৃতপক্ষে বিষয়টি সম্পূর্নই গুজবীয় পরে প্রমানিত হয়।