রাঙামাটি জেলা পরিষদের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস

425

॥ স্টাফ রিপোর্টার ॥

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার সকালে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ এর উদ্যেগে শহরের ভেদভেদীতে নির্মিত বঙ্গবন্ধুর ভাষণের ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে জেলা পরিষদ সভাকক্ষে জাতির পিতার জীবন ও কীর্তির উপর আলোচনা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমার সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় বক্তব্য রাখেন পরিষদের মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা ছাদেক আহমদ, পরিষদের সদস্য সাধন মনি চাকমা, চানমুনি তঞ্চচঙ্গ্যা, মনোয়ারা আক্তার জাহান, স্মৃতি বিকাশ ত্রিপুরা, অমিত চাকমা রাজু’সহ পরিষদের বিভিন্ন হস্তান্তরিত বিভাগের কর্মকর্তাগণ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের জনসংযোগ কর্মকর্তা অরুনেন্দু ত্রিপুরা।

আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা বলেন, ৫২’র ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ৭১’র মহান স্বাধীনতা মুক্তিযুদ্ধে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর অবদান ছিলো অপরিসীম। তিনি এদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা,  জাতিকে শিক্ষিত করতে, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে সবসময় কাজ করে গেছেন। এ আন্দোলন করতে গিয়ে অনেকবার তাকে জেল কারাবাস ভোগ করতে হয়েছে। তবুও তিনি থেমে থাকেননি। তিনি চেয়েছিলেন এদেশকে একটি সোনার বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে। কিন্তু ৭১’র স্বাধীনতা বিরোধীরা ৭৫’র ১৫আগস্ট তাকে স্বপরিবারে হত্যা করেছে।

যাতে বিশ্বে বাংলাদেশ মাথা উচু করে দাঁড়াতে না পারে। কিন্তু তার আদর্শে গড়া তার সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তার পিতার সেই সোনার বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন পূরণে এগিয়ে চলেছেন এবং দায়িত্ব নিয়ে বঙ্গঁবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে অদ্যাবধি কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা দেশ পরিচালনার দায়িত্ব নেওয়ার পর হতে দেশে অর্থনৈতিক, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, নারী উন্নয়ন’সহ বিভিন্ন সেক্টরে জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণে এবং আগামীতে এই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আমাদের যার যার দায়িত্ব আমাদের সঠিকভাবে পালন করতে হবে। তবেই দেশ ও জাতির উন্নয়ন আরো ত্বরান্বিত হবে।

তিনি আরো বলেন, ৭১’র দোসররা ক্ষমতায় আসার পর মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাসকে বিকৃত করে উপস্থাপন করেছে। তাই নতুন প্রজন্মদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আদর্শিত করতে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তাদের মাঝে তুলে ধরার আহ্বান জানান তিনি।
পরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে পরিষদের হস্থান্তরিত বিভাগ রাঙ্গামাটি যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর হতে মৎস্য, কম্পিউটার, ইলেক্ট্রনিক্স ও মিশ্র ফলে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ৫জন যুবদের মাঝে ৫০হাজার টাকা করে  মোট ২লক্ষ ৫০হাজার টাকার চেক বিতরণ করা হয়।