একটি সেতু বদলে দিতে পারে লক্ষ মানুষের ভাগ্য

456


॥ মোঃ আজগর আলী খান, রাজস্থলী ॥

রাঙ্গামাটি, চন্দ্রঘোনা, রাজস্থলী, রাইখালী সংযোগ সড়কে কর্ণফুলী নদীর উপর একটি সেতুর অভাবে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, রাজস্থলী ও চট্টগ্রাম জেলার রাঙ্গুনীয়া, রাউজান উপজেলার সাথে সরাসরি যোগাযোগের জন্য একমাত্র ভরসা রাঙ্গামাটি, চন্দ্রঘোনা সড়কটি একমাত্রই ভড়সা।

কর্ণফুলী নদীর উপর একটি সেতু নির্মানে এই অঞ্চলের জনসাধারণ যুগ যুগ ধরে অপেক্ষার প্রহর গুনছে। চন্দ্রঘোনা রাইখালী সংযোগ স্থলে সেতু না থাকায় কর্ণফুলী নদীতে যুগ যুগ ধরে চলছে ফেরী পারাপার। নির্ধারিত সময়ের পরে ফেরী চলাচল না করায় দুর দুরান্ত থেকে জরুরী রোগী ও স্থানীয় জন সাধারণসহ পারাপারে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়।

ফেরী পারাপারে ভোগান্তি বেড়ে যাওয়ায় লিচু বাগান, রাইখালী ফেরীঘাটে সেতু নির্মানের ব্যাপারে প্রতিশ্রুতি মিলছে কিন্তু তার কোন বাস্তবায়ন আদৌ ঘটেনি। বান্দরবান ও রাজস্থলী থেকে রাঙ্গামাটির উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা বাসসহ অন্যান্য যানবাহনকে শুধু ফেরী পারাপার হতে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়।

শুধুমাত্র একটি ফেরী থাকায় পারাপার করা যায় না। নির্দিষ্ট সময়ে ফেরী ছাড়ার পরে কোন ধরনের যানবাহন ঘাটে পৌছলে আবার ফেরী পেতে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা করতে হয়। ফলে প্রতিদন ট্রাক, সিএনজি, জীপ ও অন্যান্য যানবাহন যাত্রী সাধারণ ঘন্টার পর ঘন্টা সময় অপচয় করে পারাপারের মাধ্যমে রাজস্থলী বান্দরবান প্রভৃত্তি জায়গায় পারাপার করতে হচ্ছে।

ফেরী পারাপারে দুর্ভোগের কথা স্বীকার করে দায়িত্ব প্রাপ্ত সড়ক ও জনপদ বিভাগের একজন প্রকৌশলীর সাথে মুঠোফোনে আলাপকালে তিনি জানান, পার্বত্য জেলার সড়ক যোগাযোগের ক্ষেত্রে এ সেতুটি নির্মান করা একান্ত প্রয়োজন। এই সেতু নির্মান হলে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়নের এক ধাপ এগিয়ে যাবে।

এছাড়া পার্বত্য বাসী পর্যটনকারীদের সময় যেমন বাচবে তেমনি কষ্টও লাঘব হবে। দ্রুত সময়ে এই সেতুটি নির্মান করা হলে সমগ্র পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে উৎপাদিত পন্য বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা সম্ভব হবে।