প্রশাসক যখন সহানুভূতিশীল

333

বর্তমান সরকারের সংষ্কার কার্যক্রমের মধ্যে জেলাপ্রশাসকের গণশুনানী একটি অন্যতম প্রসংশনীয় উদ্যোগ।

কিন্তু সব উদ্যোগ সব সময় কাক্সক্ষীত মানে কার্যকর হয় না। রাঙামাটির বর্তমান জেলাপ্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ এ ক্ষেত্রে এক ব্যতিক্রম ধর্মী প্রশাসক; যিনি প্রতি সপ্তাহে নিয়ম করে গণশুনানী তো করেনই, সাথে সাথে প্রত্যন্ত এলাকা থেকে আসা অতি সাধারণ মানুষকে তাঁর পাশে বসিয়ে পরম মমতায় শুনেন তাদের কথাগুলো, প্রয়োজনীয় সমাধানও দেন বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই। তবে কাউকে আর্থিক সহায়তা প্রদান এই গণশুনানীর কর্মসূচি নয়।

এখানে প্রশাসনিক বিভিন্ন জটিলতা এবং পারস্পরিক বিরোধগুলোই এতকাল শোনা হতো। কিন্তু বুধবার ১১ জুলাই রাঙামাটি শহরের এক গরীব অভিভাবক গণশুনানীতে হাজির হন এক অদ্ভুৎ আবেদন নিয়ে। তিনি জানান, অর্থাভাবে বই কিনতে না পারায় তার মেয়ের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এই আরজি শোনার পর দেরী না করেই তাৎক্ষণিকভাবে ওই গরীব শিক্ষার্থীর পুস্তক কিনে আনালেন জেলাপ্রশাসক।

রাঙ্গামাটি সদর উপজেলার রসুলপুর গ্রামের মহি উদ্দীন কন্যা রাঙামাটি সরকারি কলেজের প্রথম বর্ষের মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী সালমা আক্তারের হাতে নতুন পাঠ্যপুস্তক তুলে দেন তিনি। বই হাতে পেয়ে আনন্দ অশ্রু সজল নয়নে খুশীতে বাগবাগ এই পরিবারটি প্রাণ ভরে দোওয়া করলেন এই ব্যতিক্রমী প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদের জন্য। বিষয়টি গতকাল রাঙামাটি শহরের সবখানে গুরুত্বের সাথে আলোচিত হয়।
-দৈনিক রাঙামাটি