সীম ক্লোনিং প্রতারণার ফাঁদে রাজস্থলী নির্বাহী কর্মকর্তা

536

sim-card-300x199

রাজস্থলী প্রতিনিধি, ৮ ডিসেম্বর ২০১৫, দৈনিক রাঙামাটি : রাজস্থলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুজন চৌধুরীর মোবাইল নম্বরটি সিম ক্লোনিং এর মাধ্যমে তাকে বিপদে ফেলার চেষ্টা করেছে একটি প্রতারক চক্র। একই নিয়মে তিন ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে মোটা অংকের আর্থিক লেনদেন করার জন্য মোবাইল ফোন থেকে অনুরোধ করে প্রতারক চক্রটি। মঙ্গলবার একই দিনে এ ঘটনা ঘটার পর, এ ব্যাপারে ইউএনও সাধারণ ডায়েরী করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

ঘটনা সম্পর্কে রাজস্থলী ২নং গাইন্দ্যা ইউপি চেয়ারম্যান উবাচ মারমা জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ব্যবহৃত মোবাইল  ফোন যার নং- ০১৮১৯৯৪৮১১৮ এর শুরুতে + প্লাস যোগ করে ৮-১০বার আমার মোবাইল নম্বরে ফোন করা হয়। ফোন করে প্রতিবারেই অপরপ্রান্ত থেকে বলে আমি খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব। আপনার ইউনিয়নের ২০০ মেঃটন চাউল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। তিনি দ্রুত টাকা পাঠানোর জন্য একটি বিকাশ নাম্বার দেন। ০১৭৫৭৭৫৩১৮ এই নাম্বারে ২ লক্ষ টাকা পাঠানোর জন্য চেয়ারম্যানকে অনুরোধ করেন। চেয়ারম্যান বলেন, বিষয়টি অবগত হওয়ার জন্য আমি নিজের মোবাইল থেকে নির্বাহী কর্মকর্তার নাম্বারে ফোন করলে দেখি ওই নাম্বারে কল ঢুকছে না।

পরে অপর একটি মোবাইল থেকে নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে বিষয়টি যে প্রতারণা তা প্রতীয়মান হয়। পরে বিষয়টি ইউএনওকে বিস্তারিত জানানো হলে তিনি বলেন, খাদ্য মন্ত্রণালায় থেকে আমাকে বারবার ফোন করে বলছে ইউপি চেয়ারম্যানদের নাম্বার দিতে। আমি নাম্বার দিয়ে খুবই চিন্তিত হয়ে পড়ি। চেয়ারম্যানদের বিষয়ে অবগত হলে কোন প্রকার লেনদেন না করার পরামর্শ দিই। তিনি জানান, একইভাবে ১নং ঘিলাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান দীপময় তালুকদারকে বরাদ্দ দেওয়ার কথা বলে অর্থ চেয়ে ফোন করা হয়। চেয়ারম্যান তার পরিচয় জানতে চেয়ে প্রশ্ন করেন- আপনি কে? আপনার কন্ঠটাতো ইউএনওর কন্ঠ নয় বললে অপর প্রান্ত থেকে মোবাইল সংযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে ইউএন সুজন চৌধুরী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রতারক চক্রকে ধরার জন্য র‌্যাব হেড কোয়ার্টারে যোগাযোগ করা হয়েছে। এসব বিষয়ে জনসাধারণকে সর্তক থাকার পরামর্শ দেন তিনি।

পোস্ট করেন- শামীমুল আহসান, ঢাকা ব্যুরোপ্রধান